দ্বীনের নসীহত

ইসলামী আলোয় আলোকিত হোক জীবন

দাড়ি কতটুকু পরিমাণ রাখতে হবে? এক মুষ্টির চেয়ে কম দাড়ি রাখলে কি ব্যক্তি ফাসিক?

beard 698509 640
দাড়ি লম্বা রাখার ব্যাপারে হাদিসে বিভিন্ন শব্দ এসেছে। যেমন- ১-إعفاء اللحى [ইফা] সহিহ ইবনে হিব্বান, হাদিস নং-৫৪৭৫। ২- وأعفوا اللحى [উফু] সহিহ বুখারি, হাদিস নং-৫৫৫৪। ৩-وَأَرْخُوا اللِّحَى [আরখু] সহিহ মুসলিম, হাদিস নং-৬২৬। ৪-وَأَوْفُوا اللِّحَى [আওফু] সহিহ মুসলিম হাদিস নং-৬২৫। ৫- وَفِّرُوا اللِّحَى [ওয়াফফিরু] সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৫৫৩। দাড়ি কেটে ফেলার নির্দেশ কোন হাদিসে নেই।
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মাওলানা মামুনুর রশিদ মাহমূদী।।

হযরত ইবনে ওমর রা. থেকে বর্ণিত। রাসূল সা. ইরশাদ করেছেন-তোমরা মুশরিকদের বিরোধীতা কর। দাড়ি লম্বা কর। আর গোঁফকে খাট কর।
আর ইবনে ওমর রা. যখন হজ্ব বা ওমরা করতেন, তখন তিনি তার দাড়িকে মুঠ করে ধরতেন, তারপর অতিরিক্ত অংশ কেটে ফেলতেন। (সহিহ বুখারি, হাদিস-৫৫৫৩)

দাড়ি লম্বা রাখার ব্যাপারে হাদিসে বিভিন্ন শব্দ এসেছে। যেমন- ১-إعفاء اللحى [ইফা] সহিহ ইবনে হিব্বান, হাদিস নং-৫৪৭৫। ২- وأعفوا اللحى [উফু] সহিহ বুখারি, হাদিস নং-৫৫৫৪। ৩-وَأَرْخُوا اللِّحَى [আরখু] সহিহ মুসলিম, হাদিস নং-৬২৬। ৪-وَأَوْفُوا اللِّحَى [আওফু] সহিহ মুসলিম হাদিস নং-৬২৫। ৫- وَفِّرُوا اللِّحَى [ওয়াফফিরু] সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৫৫৩। দাড়ি কেটে ফেলার নির্দেশ কোন হাদিসে নেই।

তাই এখানে লক্ষণীয় হল এ হাদীসের মর্মার্থ সাহাবায়ে কেরাম কী বুঝেছেন? মনগড়া বুঝলে হবে না। কারণ সাহাবারা হলেন রাসূল সাঃ এর হাদীসের আমলী নমুনা। আমরা বুখারীর হাদীসটির দিকে তাকালেই এ ব্যাপারে সমাধান পেয়ে যাই-

হযরত ইবনে ওমর রাঃ থেকে বর্ণিত। রাসূল সা. ইরশাদ করেছেন-তোমরা মুশরিকদের বিরোধীতা কর। দাড়ি লম্বা কর। আর গোঁফকে খাট কর।

আর ইবনে ওমর রাঃ যখন হজ্ব বা ওমরা করতেন, তখন তিনি তার দাড়িকে মুঠ করে ধরতেন, তারপর অতিরিক্ত অংশ কেটে ফেলতেন। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৫৫৩}

এখানে যদিও হজ্ব ও উমরার সময়ের কথা বলা হয়েছে ,কিন্তু মুহাদ্দিসীনরা বলেন তিনি তা সব সময়ই করতেন । এ ছাড়াও আবু দাউদ ও নাসাঈর বর্ণনায় ইবনে উমরের (রাঃ) হজ্ব ও উমরা ছাড়া অন্য সময়েও দাড়ি এক মুঠের বেশীটুকু কেটে ফেলার কথা রয়েছে।
(ফাতহুল বারীঃ খন্ড-১০ পৃঃ ৩৬২)

কোন হাদীসেই সরাসরি দাড়ি এক মুষ্ঠি পরিমাণ রাখার কথা উল্লেখ নেই , শুধুমাত্র লম্বা করার কথা উল্লেখ রয়েছে। তবে সাহাবায়ে কেরাম থেকে এক মুষ্ঠি পরিমাণ দাড়ি রাখা প্রামাণিত আছে। দাড়ি সম্পর্কিত হাদীস বর্ণনাকারী সাহাবী আবু হুরাইরা ইবনে উমর রা. প্রমুখ গণ দাড়ি এক মুষ্ঠি পরিমাণ রাখতেন।

তাই এ ব্যাপারে তাঁদের আমল আমাদের জন্য দলীল। এর কারণ হল– যে বিষয়ে হাদীসে সরাসরি পাওয়া যায় না সে বিষয়ে সাহাবায়ে কেরামের আমল শরীয়তের প্রমাণ হিসেবে সাব্যস্ত হয়। কেননা তারা হলেন হাদীসে রাসূলের সা. আমলী নমুনা। সুতরাং দাড়ি কমপক্ষে এক মুষ্ঠি পরিমাণ হওয়া প্রত্যক্ষভাবে সাহাবায়ে কেরাম থেকে প্রমাণিত হলেও পরোক্ষভাবে তা রাসূল সা. থেকেই প্রমাণিত।

হযরত উমর রা. তো নিজেই এক ব্যক্তির দাড়ি ধরে এক মুঠের অতিরিক্ত অংশটুকু নিজেই কেটে দিয়েছিলেন। (ফাতহুল বারী. খন্ড-১০ পৃঃ ৩৬২) ইবনে উমর রা. ছিলেন রাসূলের সা. আদর্শের পুঙ্খনুভাবে এবং পূর্ণ অনুসারী । তাই তিনি যা করেছেন তা রাসূল (সাঃ) থেকেই জেনে-শুনে করেছেন ।

উপরোক্ত দু’জন মহান সাহাবী ব্যতীত আবু হুরাইরা, জাবির রা. প্রমুখ সাহাবী থেকে ও দাড়ির এক মুঠের অতিরিক্ত অংশটুকু কেটে ফেলার কথা পাওয়া যায়। এ থেকে দাড়ি কমপক্ষে এক মুঠ পরিমাণ রাখার বিষয়টি প্রমাণিত হয়।

দাড়ি না রাখা , মুন্ডিয়ে ফেলা বা এক মুষ্ঠির কম রাখা হারাম ও কবীরা গুনাহ। যে দাড়ি মুন্ডায় বা এক মুঠের চেয়েও ছোট করে ফেলে তার আমল নামায় পুনরায় দাড়ি এক মুঠ পরিমাণ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত গুনাহ লিখা হতে থাকে। কেননা শরীয়তের হুকুম হল-দাড়ি কমপক্ষে এক মুঠ পরিমাণ রাখা। তাই এর চেয়ে দাড়ি ছোট করে ফেললে বা মুন্ডিয়ে ফেললে যতক্ষন পর্যন্ত দাড়ি এক মুঠ পরিমাণ না হবে ততক্ষন পর্যন্ত সে শরীয়তের হুকুম অমান্যকারী সাব্যস্ত হবে এবং তার নামে গুনাহ লিখা হতে থাকবে। অন্যান্য গুনাহ সাময়িক ও অস্থায়ী, কিন্তু দাড়ি ছোট করা বা মুন্ডানোর গুনাহ দীর্ঘস্থায়ী ,যে ব্যক্তি দাড়ি মুন্ডায় বা ছোট করে (এক মুঠের চেয়ে) সে ফাসিক।


Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •