দ্বীনের নসীহত

ইসলামী আলোয় আলোকিত হোক জীবন

আজহারী সাহেব, আপনি নিজের মাযহাব স্পষ্ট করুন

Azhari
Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আমরা বাংলাদেশের মুসলমান। আমাদের মাঝে বিভিন্ন ফেরকা আছে। বিভিন্ন দল আছে। রাজনৈতিকভাবেও আমাদের মাঝে মতানৈক্য আছে। কিন্তু এক জায়গায় আমরা সবাই এক। আমরা সবাই হানাফী। হানাফীয়্যাতকে কেন্দ্র করে আমাদের মাঝে মহাঐক্য বিদ্যমান ছিল। আমাদের কেউ আওয়ামীলীগ ও কেউ বিএনপি, জামাত, যে যাই হোক আমরা সবাই হানাফী।

আমাদের এই মহাঐক্যের উপর সর্বপ্রথম আঘাত করে আহলে হাদিস নামের লা-মাযহাবীরা। আর দ্বিতীয়তে  আঘাত করলেন আপনি আজহারী সাহেব! আমরা কওমী মাদ্রাসার ওলামা-তলাবারা সব মাযহাবের মাসাআলা আমরা পড়ি। শুধু মাসআলা অধ্যয়ন করি না করি তাই নয় বরং সব মাযহাবের দলিলও আমরা অধ্যায়ন করি। আমাদের মা-লা-বুদ্দা থেকে শুরু করে কুদুরী, শরহে বেকায়া, হেদায়া এসব কিতাবে সব মাযহাবের আলোচনা আছে। আমরা সিহাহ-সিত্তাসহ হাদিস এর যেসব কিতাব অধ্যয়ন করি এখানেও সব মাযহাব বিশ্লেষণ করি। সব মাযহাবের দলিল-প্রমাণ অধ্যয়ন করি। কিন্তু আমরা জনসম্মুক্ষে শুধু আমাদের হানাফী মাযহাব নিয়ে আলোচনা করি। হানাফী মাযহাব মতে আমরা ফতোয়া প্রদান করি। হানাফী মাযহাব মতে আমরা মাসআলা বর্ণনা করি।

আমাদের কওমী মাদ্রাসাগুলোতে উচ্চতর ইফতা বিভাগ আছে। আমাদের ইফতা বোর্ড আছে। আমাদের ইফতা বোর্ড থেকে হানাফী মাযহাব মতে ফতোয়া প্রদান করা হয়। অন্য কোন মাযহাবের ফতোয়া এখানে প্রদান করা হয় না। তার মানে এই নয় যে, আমাদের ওলামারা অন্য মাযহাবের মাসআলা জানিনা। আমরা হানাফী মাযহাবের অনুসারী। আমাদের বাংলাদেশের মানুষ হানাফী মাযহাবের অনুসারী। এখানে অন্য ইমামের বক্তব্য সাধারণ মানুষের কাছে পেশ করাই হল বিশৃংখলা, ফিৎনা।

দেখুন লা-মাযহাবীরা নিজেদেরকে হানাফি দাবি করে না। তারা যদি ভিন্ন কোন মাসআলা পেশ করে আমাদের সাধারণ মুসলমানরা মনে করে যে সে মাযহাব মানে না, সেটা তার বিষয়। সেটা তার ফতোয়া।

আমাদের দেশের মানুষ প্রবাসে গিয়ে বিভিন্ন ধরনের আমল দেখে এতে তারা বিভ্রান্ত হয় না। তারা মনে করে এটা অন্য মাযহাবের আমল। কিন্তু আপনি আজহারীকে সবাই হানাফী মনে করে। তাহলে এখন হয়তো আপনি হানাফী মাযহাব ফতোয়া দিবেন। না হয় আপনি কোন মাযহাবের বা কোন মাযহাব মানেন না তা স্পষ্ট করবেন।

জনাব আযহারী সাহেব এদেশের হাইকোর্ট থেকে ফতোয়া নিষিদ্ধ করা হয়েছিল। অনেক আন্দোলন-সংগ্রামের পর ফতোয়ার অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এদেশের আলেমরাই ফতুয়ার জন্য আন্দোলন করেছে। আপনি বা আপনার দলের কেউ ফতোয়ার জন্য আন্দোলন-সংগ্রাম করেনি। অতএব ভিন্ন মাযহাবের ফতোয়া দিয়ে এদেশে  বিভ্রান্তি ছড়াবেন না।

লেখক: মাওলানা আবদুর রাজ্জাক


Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •